নলছিটিতে পরকীয়া প্রেমিকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ

0

নিজস্ব প্রতিবেদক: নলছিটি উপজেলাার ঝামুড়া গ্রামে গৃহবধুকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষনের অভিযোগে রাসেল খান (৩২) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়েছে। শুক্রবার দিবাগত রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়। জানাযায়, নলছিটি উপজেলার ঝামুড়া গ্রামের ভেকু মেশিন (মাটি কাটা যন্ত্রাংশ) ব্যবসায়ী রাসেল খান তার ব্যবসায়ী পার্টনার মো. জাহাঙ্গীর হাওলাদারের স্ত্রী সোনিয়া বেগমের (৩০) সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। তাদের দীর্ঘদিন সর্ম্পক চলমান থাকায় বিষয়টি জাহাঙ্গীর হোসেন টের পায়। প্রায় ৫ মাস আগে স্বামী জাহাঙ্গীর হোসেনকে তার স্ত্রী চেতনা নাশক ঔষধ খাবারের সাথে মিশিয়ে খেতে দেন। এতে জাহাঙ্গীর অজ্ঞানাবস্থায় পড়ে থাকে।এ সুযোগে স্ত্রী তার পরকীয়া প্রেমিক রাসেল খানের সাথে ওই গৃহের মালামাল, নগদ তিন লক্ষাধিক টাকা ও র্স্বনাংকার নিয়ে দুইটি শিশু সন্তান রেখে সোনিয়া পালিয়ে যায়। লম্পট প্রেমিক প্রায় ৫ মাস বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে শারীরীক সর্ম্পক স্থাপন করেই চলে। প্রেমিকা সোনিয়া বেগম বিয়ে প্রস্তাব দিলে বিভিন্ন অজুহাতে এড়িয়ে যায়।অন্যদিকে তার স্বামী, স্ত্রীকে খুজেঁ না পেয়ে নলছিটি থানার অফিসার ইনর্চাজ মো. সাখাওয়াত হোসেনের দ্বারস্থ হন। তিনি কৌশলে স্থানীয় সাবেক ইউপি সদস্য মো. মাহাবুব হোসেনের মধ্যস্থতায় ভিকটিমকে উদ্ধার করে তার স্বামীর হাতে তুলে দেন। এ নিয়ে কয়েক দফা শালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই শালিস বৈঠকে সোনিয়া বেগম তার পরকীয়া প্রেমিক রাসেল খান কর্তৃক নির্যাতনের কাহিনী তুলে ধনের। পরবর্তীতে ভিকটিম ঝালকাঠি ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ইচ্ছের বিরুদ্ধে আটকিয়ে রেখে ধর্ষনের অভিযোগে মামলা দায়ের করে। ওই মামলা গত ২০ মার্চ নলছিটি থানায় এজাহার হয়। মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. আশরাফ হোসেন জানান, অভিযুক্ত রাখেল খানকে এজাহারের ২ নং আসামী কুশঙ্গল ইউনিয়ন পরিষদের প্রাক্তন মেম্বার মো. মাহাবুব হোসেনের গৃহ থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ভিকটিমের স্বামী জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, তার স্ত্রীর গর্ভে দুইটি সন্তান রয়েছে।

Share.

Leave A Reply